, শুক্রবার, ১৪ জুন ২০২৪ , ৩১ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ


মসজিদে আজান দেওয়া অবস্থায় প্রাণ গেল মুসল্লির

  • আপলোড সময় : ১০-০৬-২০২৪ ১১:২২:১৪ পূর্বাহ্ন
  • আপডেট সময় : ১০-০৬-২০২৪ ১১:২২:১৪ পূর্বাহ্ন
মসজিদে আজান দেওয়া অবস্থায় প্রাণ গেল মুসল্লির
এবার ফেনীর সোনাগাজীতে মসজিদে আজান দিতে গিয়ে বিদ্যুৎস্পৃষ্টে মোহাম্মদ ছায়েদ উল্যাহ (৫০) নামে এক ব্যক্তির মৃত্যু হয়েছে। রোববার (৯ জুন) দুপুরে উপজেলার চরচান্দিয়া ইউনিয়নের লন্ডনীপাড়া হাফেজ আবদুর রশিদ বাড়ি জামে মসজিদে এ ঘটনা ঘটে। নিহত ছায়েদ উল্যাহ ইউনিয়নের হাফেজ আবদুর রশিদ বাড়ির মোহাম্মদ হোসেনের বড় ছেলে।

জানা গেছে, মসজিদের মুয়াজ্জিন না থাকায় রোববার দুপুর ১টার দিকে ছায়েদ উল্যাহ জোহরের আজান দিতে যান। হঠাৎ আজানের শব্দ বন্ধ হয়ে যাওয়ায় আশপাশের লোকজন এগিয়ে এসে ছায়েদ উল্ল্যাহকে মসজিদের মেঝেতে পড়ে থাকতে দেখতে পান।

এ সময় মাইক্রোফোনটি তার বুকের ওপর পড়েছিল। তাৎক্ষণিক স্থানীয় লোকজন তাকে উদ্ধার করে সোনাগাজী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন। রাতে জানাজা শেষে নিহতের মরদেহ পারিবারিক কবরস্থানে তাকে দাফন করা হয়েছে।

এদিকে কাউছার আলম নামে স্থানীয় এক যুবক বলেন, আজান বন্ধ হওয়ার পরপরই আমি মসজিদে যাই। তখন উনার (ছায়েদ উল্ল্যাহ) বুকের ওপর পড়ে থাকা মাইক্রোফোন সরানোর সময় আমার শরীরও বিদ্যুৎস্পর্শ করে। এইজন্য ধারণা করছি বজ্রপাতে মাইক্রোফোন বিদ্যুতায়িত হয়ে এ ঘটনা ঘটেছে। 

সোনাগাজী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের উপ-সহকারী কমিউনিটি মেডিকেল অফিসার সাদিকুল করিম আরাফাত বলেন, হাসপাতালে আনার আগেই তার মৃত্যু হয়েছে। পরে পরিবারের লোকজন তার মরদেহ বাড়ি নিয়ে যায়। 
 
এ বিষয়ে স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান মোশাররফ হোসেন মিলন বলেন, এমন আকস্মিক মৃত্যু কষ্টদায়ক। তিনি খুবই ভালো মানুষ ছিলেন। তার মৃত্যুতে পুরো এলাকায় শোকের ছায়া নেমে এসেছে। 

এদিকে সোনাগাজী মডেল থানা পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) সুদ্বীপ রায় বলেন, পুলিশ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছে। ধারণা করা হচ্ছে তিনি মসজিদে বিদ্যুতায়িত হয়ে মারা গেছেন। 
প্রতিপক্ষ হিসেবে মুস্তাফিজের বোলিংয়ে দেখা একটু কঠিন ছিল: মনে করেন নেদারল্যান্ডসের কোচ

প্রতিপক্ষ হিসেবে মুস্তাফিজের বোলিংয়ে দেখা একটু কঠিন ছিল: মনে করেন নেদারল্যান্ডসের কোচ